Home / এক্সক্লুসিভ / ২ শতাধিক ব্যক্তির সঙ্গে শা’রীরিক স’ম্পর্ক নারী ব্যাংক কর্মক’র্তার

২ শতাধিক ব্যক্তির সঙ্গে শা’রীরিক স’ম্পর্ক নারী ব্যাংক কর্মক’র্তার

পাঁচজন-দশজন নয়! ২০০ জনেরও বেশি ব্যক্তির সঙ্গে শারীরিক স’ম্পর্ক করে চাকরি থেকে বরখাস্ত হয়েছেন এক নারী ব্যাংক কর্মক’র্তা। সম্প্রতি জাম্বিয়ায় এ ঘটনা ঘটেছে।

৩৯ বছর বয়সী ওই নারীর নাম মুটালে উইনফ্রিডা। তিনি জাম্বিয়ার জ্যানাকো ব্যাংকের সিনিয়র এক্সিকিউটিভ হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন।

জাম্বিয়ান অবজারভার’র প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শারীরিক স’ম্পর্কে জড়িয়ে পড়া ২০০ জন ব্যক্তির মধ্যে ব্যাংকের গ্রাহক থেকে চাকরিপ্রার্থীরাও ছিলেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে ওই নারীকে বরখাস্ত করেছে ব্যাংক।

জানা যায়, বাড়ি-গাড়ির ঋণ দেওয়ার আগে পুরুষ গ্রাহকদের নিজের শয্যাসঙ্গী হতে বাধ্য করেন তিনি। এ ছাড়া চাকরি ‘পাকা’ করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েও অনেক যুবকের সঙ্গে শারীরিক স’ম্পর্ক করেছেন উইনফ্রিডা।

কিন্তু একের পর এক অ’ভিযোগ জমা পড়ায় ব্যাংকের ওই নারী কর্মক’র্তার বি’রুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বাধ্য হয়েছে ব্যাংক

৬০ দিনে ২০০ ধ’র্ষকের ঘুম হারাম করেছেন এই নারী পুলিশ

নিয়োগ পাওয়ার মাত্র দুই মাসের মাথায় ২০০টি ধ’র্ষণ মামলার তদন্ত শেষ করেছেন পাকিস্তানের এক নারী পুলিশ। কুলসুম ফাতিমা নামের ওই স্টেশন হাউজ অফিসার (এসএইচও) দেশটির পাঞ্জাব প্রদেশের পাকপাতান জেলার প্রথম এসএইচও।

ফাতিমার এমন সাফল্য চারদিকে আলোচনার ঝড় তুলেছে। বিবিসিসহ বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম তার সাক্ষাৎকার প্রকাশ করেছে। ফাতিমা বলছেন, নাবালিকাদের প্রতি তার দেশের পুরুষদের যে আচরণ সেটি তিনি কখনোই মানতে পারেননি। ভেতরে ভেতরে বিষয়টি নিয়ে তার একটি ক্ষোভ ছিল। সেই ক্ষোভ উগরে দেন চাকরি পাওয়ার পর।

‘সব সময় ভাবতাম কবে ধ’র্ষকদের শায়েস্তা করতে পারবো। সাব-ইন্সপেক্টরের পরীক্ষা দেওয়ার পর সেই সুযোগ পেয়ে যাই,’ বলছিলেন ফাতিমা। তিনি জানান, যা সবসময় করতে চেয়েছেন সেই দায়িত্ব পাওয়ায় তিনি দারুণ খুশি। এই নারী পুলিশ কর্মকর্তা ইতিমধ্যে সব তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন।

ফাতিমাকে নিয়োগ দেন জেলা পুলিশ অফিসার এবাদত নিসার। তিনি আশা করছেন, তার বিভাগে নারীদের অংশগ্রহণ আরও বাড়লে ধ’র্ষণের মতো অপরাধ দ্রুত নিয়ন্ত্রণে আসবে।